আজ   ,
সংবাদ শিরোনাম :

কিশোরগঞ্জের শোলাকিয়ায় লাখো মুসল্লির ঈদের নামাজ আদায়

নিজস্ব প্রতিনিধি

বরাবরের মতো এবারও দেশের কিশোরগঞ্জের ঐতিহাসিক শোলাকিয়া ঈদগাহ ময়দানে লাখো মুসল্লি ঈদুল আযহার নামাজ আদায় করেছেন। জামাত শুরু হয় সকাল ৯টায়।

জামাতে জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপার ও শহরের গন্যমান্য ব্যক্তিসহ রাজনৈতিক দলের নেতাকর্মী ও বিভিন্ন শ্রেণি পেশার মানুষ অংশ নেন।

১৯১ তম এ ঈদুল আযহার জামাতে ইমামতি করেন মাওলানা হিফজুর রহমান খান।

মুসল্লিদের আসা যাওয়ার সুবিধার্থে ভৈরব ও ময়মনসিংহ রুটে ‘শোলাকিয়া এক্সপ্রেস’ নামে দুটি বিশেষ ট্রেন চলাচল করে।

জনশ্রুতি আছে, কোনো এক ঈদের জামাতে শোলাকিয়ায় ১ লাখ ২৫ হাজার বা ‘সোয়া লাখ’ মুসল্লি এক সঙ্গে নামাজ আদায় করেছিলেন। সেই থেকে এই মাঠের নাম হয় ‘সোয়া লাখিয়া’ যা এখন শোলাকিয়া নামে পরিচিত।

প্রতি বছর এ ঐতিহাসিক ঈদগাহ ময়দানে ঈদের জামাতে লাখো মানুষের ঢল নামে। বড় জামাতে নামাজ আদায় করলে বেশি সওয়াব পাওয়া যায়, তাই প্রতি বছর ঈদের জামাতে দেশ-বিদেশের মুসল্লিরা ভিড় জমায় এ মাঠে।

২০১৬ সালে ঈদুল ফিতরের দিন শোলাকিয়ায় জঙ্গি হামলার ঘটনায় নিরাপত্তা নিয়ে বাড়তি সতর্কতায় গ্রহণ করে প্রশাসন। র‌্যাব-পুলিশের পাশাপাশি দুই প্লাটুন বিজিবি। বসানো হয় ক্লোজ সার্কিট ক্যামেরা। মেটাল ডিটেক্টরে দেহ তল্লাশির পর নির্ধারিত গেট দিয়ে ভিতরে প্রবেশ করতে দেয়া হয় মুসল্লিদের । মাঠের আশপাশের নিরাপত্তায় ছিল শক্তিশালী ক্যামেরাযুক্ত দুইটি ড্রোন।

আড়াই’শ বছর আগে শোলাকিয়া ঈদগাহ প্রতিষ্ঠা করেন শহরের হয়বতনগর সাহেব বাড়ির লোকজন। প্রায় ৭ একর আয়তনের এ মাঠে প্রতি বছর ঈদুল ফিতরের জামাতে দেশ-বিদেশের তিন লাখেরও বেশি মুসল্লি জামাত আদায় করেন। তবে কোরবানির আনুষ্ঠানিকতার কারনে ঈদুল আজহার জামাতে মুসল্লি সমাগম হয় কম।

শর্টলিংকঃ
সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না। পাঠকের মতামতের জন্য কৃর্তপক্ষ দায়ী নয়। লেখাটির দায় সম্পূর্ন লেখকের।


ঘোষনাঃ