আজ   ,
সংবাদ শিরোনাম :

জাতীয় লিগে দ্রুততম ডাবল সেঞ্চুরি করার পথে লিটন দাস

অনলাইন ডেস্ক

 

লিটন দাস বড় ইনিংস খেলবেন আর বোলারদের কচুকাটা করবেন না তা কি হয়! আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে টি২০, ওয়ানডে এমনকি টেস্টে তার যে ভালো ইনিংস আছে তা দ্রুত রান তুলেই করেছেন। ঘরোয়া প্রতিযোগিতায়ও খুব একটা ব্যাতিক্রম নন তিনি। সম্প্রতি শেষ হওয়া এশিয়া কাপেও ভারতের বিপক্ষে করেছেন দুর্দান্ত এক সেঞ্চুরি। আত্মবিশ্বাসী লিটন দাস এবার ঝড় তুললেন জাতীয় লিগে। সেই ঝড় থামার আগে করেছেন দারুণ এক রেকর্ডও।

জাতীয় লিগের দ্বিতীয় পর্বের তৃতীয় দিনে রাজশাহীর বিপক্ষে ডাবল সেঞ্চুরি করেছেন লিটন দাস। শুধু ডাবল সেঞ্চুরি করে থামেননি; গড়েছেন অনন্য এক রেকর্ড। বাংলাদেশে প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটে সবচেয়ে দ্রুত ডাবল সেঞ্চুরির মালিক এখন তিনি।

এশিয়া কাপের পর বিশ্রাম কাটিয়ে রাজশাহীর বিপক্ষে জাতীয় লিগের ম্যাচে ফিরেছেন লিটন দাস। এশিয়া কাপের শেষটায় দারুণ সেঞ্চুরি করা লিটন প্রথম ইনিংসে ভালো করতে পারেননি। ফিরে যান মাত্র ১৭ রান করে। তার দল অলআউট হয়ে যায় ১৫১ রানে। বিপরীতে প্রথম ইনিংসে রাজশাহী গড়ে ৪ উইকেটে ৫৮৯ রানের বিশাল পাহাড়।

জবাবে দ্বিতীয় ইনিংসে টি২০ মেজাজে ব্যাট করা শুরু করেন লিটন দাস। দ্বিতীয় ইনিংসে ৪৪ বলে নিজের ফিফটি পূর্ণ করেন তিনি। এরপর সেঞ্চুরি করতে নিয়েছেন ৮১ বল। খেলেছেন ১৬টি চার ও ১টি ছক্কায় মার। এরপরও থামেনি লিটনের ব্যাট। ১০৮ বলে পূর্ণ করেন নিজের ১৫০ রান। এরপর ১৪০ বলে পূর্ণ করেছেন ডাবল সেঞ্চুরি।

লিটন দাস প্রথম সেঞ্চুরি করেছেন ৮১ বলে। আর দ্বিতীয় সেঞ্চুরি করেছেন মাত্র ৫৯ বলে। যা বাংলাদেশের মাটিতে প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটে সবচেয়ে দ্রুত ডাবল সেঞ্চুরির রেকর্ড। এর আগের দ্রুততম সেঞ্চুরিও ছিল লিটনের অধীনে। সেবার তিনি নিয়েছিলেন ১৯০ বল। প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটে দ্রুততম ডাবল সেঞ্চুরির বিশ্বরেকর্ডটা অবশ্য আফগানদের দখলে। মাত্র ৮৯ বলে আফগানিস্তানের শফিকউল্লাহ শেনওয়ারি ডাবল সেঞ্চুরি পূর্ণ করেন।

লিটন অবশ্য ডাবল সেঞ্চুরির পর আর ক্রিজে দাঁড়াতে পারেননি। তাইজুলের বলে ১৪২ বলে ৩২ চার ও ৪ ছক্কায় ২০৩ রান করে সাজঘরে ফেরেন তিনি। লিটনের ডাবল সেঞ্চুরিতে দ্বিতীয় ইনিংসে বড় সংগ্রহের পথে রংপুর। দিন শেষ ২ উইকেট হারিয়ে ৩১৯ রান তুলেছে তারা।

শর্টলিংকঃ
সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না। পাঠকের মতামতের জন্য কৃর্তপক্ষ দায়ী নয়। লেখাটির দায় সম্পূর্ন লেখকের।


ঘোষনাঃ