আজ   ,
সংবাদ শিরোনাম :

“থাইল্যান্ডে প্রশিক্ষণ-  অনন্য অর্জন, মননশীল অভিজ্ঞতা”

“থাইল্যান্ডে প্রশিক্ষণ-  অনন্য অর্জন, মননশীল অভিজ্ঞতা”

স্বপ্ন ও বাস্তায়নের  যাত্রা

১৮-০৯-২০১৮ তারিখ সকাল ৮:০০ টা থেকে খুব আনন্দঘন কিন্তু বিরক্তিকর নেট স্লো নিয়েই মাইক্রোসফট ইননোভেটিভ এ্যাডুকেটরে কাজ করতেছিলাম৷ হঠাৎ ফোনে একটা গভীর কন্ঠ ভেসে আসলো ৷ ফোন রিসিভ করতেই, “অভিনন্দন ম্যাডাম! এতো বড় সুসংবাদ টি আমাদেরকে জানালেন না?” অবাক হলাম! কিছুই বুঝতে পারলাম না, কিসের সুসংবাদ? তখন স্যার বললেন ইংরেজি বিষয়ে আমাকে থাইল্যান্ডে উচ্চতর প্রশিক্ষণে নির্বাচন করা হয়েছে। বাংলাদেশ থেকে ২২ জন মাধ্যমিক শিক্ষককে বাছাই করা হয়েছে কিছু ক্রাইটারিয়ার ভিত্তিতে। এতো নিখুঁত বাছাইয়ের মধ্য দিয়ে আমি নির্বাচিত হয়ে গেলাম নিজেকে বিশ্বাস করতে পারছিলাম না। আমি আবেগে আপ্লুত হয়ে গেলাম। নেটের স্লোটা যেন অামার হৃদয়ে ফোর জিতে রূপান্তরীত হলো! অতি অানন্দে চোঁখে পানি এসে গেল৷ সংবাদটি তৃতীয় বারের মতো সরকারিভাবে বিদেশে প্রশিক্ষণের সুযোগ করে দিল৷ প্রতিবারের নিউজই ছিলো স্বপ্নের মতো; তবে সব স্বপ্নই আমি দেখেছি জেগে জেগে৷ এপিজে অাব্দুল কালামের স্বপ্নের বাণিটি অামি কখনো ভুলি না৷

থাইলেন্ডের উদ্দেশ্যে রওয়ানা ঃ

১৬.০৯.২০১৮ খ্রি. এলো সেই প্রতিক্ষিত স্বপ্ন বাস্তবায়নের দ্বার খুললো। থাইল্যান্ডের উদ্দেশ্যে ফ্লাই বাংলাদেশ সময় ১১ঃ০০ BG 88 বাংলাদেশ বিমান। দু’জন টিম লিডার অসাধারণ নেতার যোগ্য নেতৃত্ব। জাহাঙ্গীর নূর স্যার(DPD, TQI-II) ও খালেদা ওয়াসিফ ম্যাম(Deputy Secretary, Ministry of Education)। বাংলাদেশ থেকে থাইল্যান্ডের সময় ব্যবধান এক ঘণ্টা। আল্লাহর অশেষ রহমতে থাইল্যান্ডের স্থানীয় সময় ৩:০০টায় বিমান অবতরণ করলো সুবর্ণভূমি এয়ারপোর্টে। সেখানে আমাদেরকে রিসিভ করার জন্য অপেক্ষা করছিলেন দুজন গাইড- আনি এবং চু। এয়ারপোর্ট পৌঁছেই প্রত্যেকে ফ্যামিলির সাথে যোগাযোগ করলেন। এবার তিনটি মাইক্রোযোগে ব্যংককের উদ্দেশ্যে যাত্রা শুরু। জানালার গ্লাস দিয়ে তাকাচ্ছিলাম৷ ট্রাফিক বিহীন খুবই পরিস্কার পরিচ্ছন্ন রাস্তা, নেই কোন গাড়ির হর্ণ। গাড়ি চলছে দ্রুত গতিতে। রোড সিগন্যাল দেয়ার সাথে সাথে গাড়ি আপন গতিতে থেমে যায়। গাড়িতে ছোট করে লিখা আছে সিট ব্যাল্ট না বাধলে ৫০০০ বাথ মানে বাংলাদেশী ১৩০০০ টাকা জরিমানা। ঠ্যালা সামলাও। অাইনের চোঁখে ফাকি দেবার কোনো সুযোগ নাই৷ চুপচাপ আনমনে বসে শুধু রাস্তার এপাশ ওপাশ তাকাচ্ছিলাম কিন্তু কোথায়ও কোন ময়লা নেই, নেই কোন মানুষের পদচারনা। মনে মনে শুধু ভাবছি এতো বড় বড় দালান, এতো এতো গাড়ি কিন্তু মানুষ কেন আমাদের দেশের মতো রাস্তায় নেই? আইনের প্রতি তারা কতটা শ্রদ্ধাশীল নিজের চোঁখে না দেখলে বিশ্বাস করা মুশকিল। যা-ই হোক ভাবনার অবসান ঘটিয়ে বিকেল ৪ টায় পৌঁছলাম আমরা ব্যাংককে। চুকুম্বিরে হোটেল পার্ক প্যালেস আমাদের থাকার ব্যাবস্থা করা হয়। সবাই কিছুক্ষণের মধ্যে ফ্রেস হওয়ার পর Chue এবং Anny আমাদেরকে নিয়ে গেলেন ইন্ডিয়ান একটা খাবার হোটেলে।

প্রশিক্ষণ শুরুঃ

Opening Ceremony: ১৮/০৯/২০১৮ ইং সকাল ৯.০০ টায়৷ প্রোগ্রাম ম্যানেজার ছিলেন Ms. Resalyn Corpuz এবং প্রধান অতিথি ও উদ্বোধনী বক্তব্য দেন Assoc. Prof. Chukiat Ruksorn, Director, ETO, Kasetsart University. সকলের সংক্ষিপ্ত পরিচিতি শেষে শুরু হলো দলীয় ফটো সেশন। একটু পরেই চা বিরতি৷ এর পর দ্বিতীয় অধিবেশনে ফ্যাসিলিটিটর ছিলেন Mr. Sodsai Karplon (Educational Supervisor of English (PM), Primary and Secondary, Ministry of Education – Thailand) সেশন শুরু হলো Kahoot Game এর মধ্যে দিয়ে। কাহুট গেম এর মধ্য দিয়ে থাইল্যান্ড কে তুলে ধরলেন। সকলের মাঝেই ছিল উত্তেজনা৷ কে হবেন প্রথম? ১৭ টি প্রশোত্তোর শেষে রেজাল্ট ফলাফল ঘোষণা হলো- প্রথম স্থান আমাদের শ্রদ্ধেয় টিম লিডার মিসেজ খালেদা ম্যাম, Deputy Secretary of Ministry of Education. অামার নামটি দ্বিতীয় অবস্থানে শুনতেই অামার অানন্দ ও উত্তেজনা অারো বেড়ে গেল৷

আমার জীবনের আরেকটি স্বরণীয় অধ্যায় রচিত হলো সেদিন। জাস্ট এনজয় ও আইচব্রেকিং সেশনে কয়েকটি গান পরিবেশন চলছিল৷ ট্রেইণাই বাংলা গান খুব মরোযোগ দিয়ে শুনছিলেন৷ হঠাৎ একজন এসে অামাবে চমকে দিলেন, ”২০ সেপ্টেম্বর আপনার বার্থডে।” অামি ভুলেই গিয়েছিলাম৷ ভাবলাম তিনি কিভাবে জানলেন৷ বুঝতে বাকি রইল না যে অাইটির যুগে কিছুই গোপন থাকে না৷ স্যার এডভান্সড বার্থডে উইশ করে চকলেট গিফট করলেন। সুন্দর একটা মুহুর্ত কিন্তু ভেতর ভেতর ফ্যামিলির সবাইকে খুব মিস করেছিলাম কিন্তু কাউকে বুঝতে দেই নি।

Education System of Thailand:

থাইল্যান্ডে “মৌলিক শিক্ষার” জন্য নয় বছর, প্রাথমিক স্কুল ছয় বছর এবং নিম্ন মাধ্যমিক স্কুল তিন বছর বাধ্যতামূলক। পাবলিক স্কুলগুলিতে ৯-গ্রেড পর্যন্ত বিনামূল্যে শিক্ষা কার্যক্রম পরিচালনা করা হয়। সরকার তিন বছরের ফ্রি প্রি-স্কুল এবং তিন বছরের বিনামূল্যে উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা প্রদান করে থাকে। শিশুরা ছয় বছর বয়সে প্রাথমিক বিদ্যালয়ে নথিভুক্ত হন এবং প্রথম থেকে প্রথম পর্যন্ত ৬ গ্রেড পর্যন্ত বাধ্যতামূলকভাবে উপস্থিত থাকতে হয়। প্রাথমিক স্কুলে ক্লাস প্রতি সপ্তাহে কমপক্ষে ৭ ঘন্টা, সর্বোচ্চ ১০০০ ঘন্টা প্রতি শিক্ষার সময়। মাধ্যমিক শিক্ষা ১২ বছর বয়সে শুরু হয়। এতে নিম্ন মাধ্যমিক শিক্ষার তিন বছর, মাতায়োম ১ থেকে মাতায়োম ৩, এবং তিন বছরের উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা, মাতায়োম ৪ থেকে মাতায়োম ৬। মাতায়োম ৩ (গ্রেড ৯) এর সাথে বাধ্যতামূলক শিক্ষা শেষ হয়। ছাত্ররা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রস্তুতিমূলক ট্র্যাকের উচ্চ-মাধ্যমিক শিক্ষাকে অনুসরণ করতে পারে, বা বৃত্তিমূলক স্কুল প্রোগ্রামগুলিতে তাদের গবেষণা চালিয়ে যেতে পারে। Homeschooling থাইল্যান্ড আইনে হয়। থাইল্যান্ডের সংবিধান ও শিক্ষা আইন স্পষ্টভাবে বিকল্প শিক্ষাকে স্বীকৃতি দেয় এবং পরিবারকে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান হিসাবে বিবেচনা করে। পরিবারের হোমস স্কুল একটি আবেদন জমা দিতে হবে এবং ছাত্র বার্ষিক মূল্যায়ন করা হয়।

এ ছাড়া দূরের গ্রামের বিদ্যালয় গুলোর জন্য রয়েছে বিশেষ ব্যবস্থা। সরকারীভাবে বিদ্যালয়ে টি ভি দেয়া হয় বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থিদের উন্নত পাঠদান দিতে। অনলাইনে পাঠদান করা হয় যা শিক্ষার্থীরা ঐ টিভি মাধ্যমে অন্তর্ভূক্ত হয়।

যথারীতি সকাল ৮ টার মধ্যে ব্রেকফাস্ট শেষ করে ৯ টায় পৌঁছে যেতাম ইউনিভার্সিটিতে। প্রথম অধিবেশনে ফ্যাসিলিটিটর Dr. Malinee, Lecturer, Curriculum and Instruction, TESOL Specialization, Faculty of Education, Kasetsart University. চমৎকার ম্যাথড এবং টেকনিক দিয়েই শুরু করলেন সেশন। কারো কোন সুযোগ নেই নিজেকে হাইড করে রাখা। জমে উঠেছে সেশন। Warm up এর জন্য দুটি দলে ভাগ করা হলো ১২+১২। টিম লিডার জাহাঙ্গীর স্যার পর্যবেক্ষণ করছেন। এক দলকে ১ টি করে তিনটি প্রশ্ন সম্বলিত একটি করে চিরকুট দেয়া হলো। প্রশ্ন গুলো ছিলো ইয়েস নো কোশ্চেন। এবার প্রত্যেকে অপর দল থেকে একজন করে বেছে নেবে এই প্রশ্নের উত্তর দেয়ার জন্য। ভাবলাম এটা একটু বেশি সহজ হয়ে গেলো না? হায় হায় এরপর দেখি দিক নির্দেশনা দেয়া হলো ইয়েস নো আন্সারের জবাব দিতে হবে “কেনো?” ক্রিটিকাল থিংকিং/ ক্রিয়েটিভ থিংকিং! এভাবে শেষ হলো দুই গ্রুপের চমৎকার শেয়ারিং। এরপর সবাই মিডেল পয়েন্ট ইউ হয়ে দাড়ালাম ১-২/১-২ ফেইস টু ফেইস। কিছু কোয়েস্চেন প্রজেক্টরে ওপেন করে দিলো। প্রত্যেকে ব্যস্ত হয়ে গেলো একে অপরকে প্রশ্ন করা ও তার সমাধান দেয়া নিয়ে। পদ্ধতি টা ছিলো 1+2+3+——–all। শিক্ষার্থীদের ব্যস্ত নয় এনগেজিং রাখার চমৎকার কৌশল।

দুপুরের লাঞ্চ ইউনিভার্সিটিতেই ব্যবস্থা করা হয়েছে। বিভিন্ন ধরণের খাবার ও ফল রাখা আছে। সেল্ফ সার্ভিস- ”যত পারো, তত খাও।” কিন্তু খাবারের সাখে আমি নিজেকে এডজাস্ট করতে পারলাম না। সেশন শেষে সবাইকে মাইক্রোতে নিয়ে গেল হোটেলে। টিম লিডাল জাহাঙ্গীর স্যার অত্যন্ত সুন্দরভাবে সকল ব্যবস্থপনা করেছেন। জিও সিরিয়াল অনুযায়ী গাড়িতে অবস্থান। রুম মেট পরস্পরের খোজ রাখতে হবে এতে করে সময়ের কাজ সময় করা অারো খুব সহজ হয়ে গেলো।

School Visit: থাইল্যান্ডের শিক্ষা ব্যবস্থা, কারিকুলাম,পাঠদান পদ্ধতি, শিক্ষক-শিক্ষার্থী সম্পর্ক, বিদ্যালয়ের অবস্থান, শিক্ষার মান ইত্যাদি সম্পর্কে সাম্যক ধরনা পেতে ট্রেণিংয়ের ফাঁকে অামাদের স্কুল ভিজিটেরও সুযোগ দেয়া হয়েছিল৷ অামরা অামাদের কো অর্ডিনেটর মহোদয়ের নেতৃত্বে Ruamrudee International School ভিজিটে গিয়েছিলাম যেটি ব্যাংকক শহরের প্রান কেন্দ্রে ও একটি বিস্ময়কর অবস্থানে অবস্থিত। এটি সর্বশেষ প্রযুক্তি এবং শেখার সংস্থার সাথে ব্র্যান্ড নতুন, বয়স ভিত্তিক সুবিধা এবং শেখার পরিবেশগুলি সমন্বিত করা। প্রাথমিক বিদ্যালয় শিশুদের জন্য ৩ থেকে ১১ বছর বয়সের শিশুদের বিশ্বমানের সৃজনশীল, উদ্ভাবনী ও উদ্দীপক শিক্ষা প্রদান করে। মাধ্যমিক স্তরের শিক্ষার অাওতায় থাকে অামাদেরইমত ৬ষ্ঠ থেকে দ্বাদশ পর্যন্ত; কিন্তু তাদের উচ্চ মাধ্যমিক বলতে কোনো শিক্ষার স্কর নাই৷ বিষয় ভিত্তিক ক্লাসরুমগুলো এমনভাবে সাজানো যেখানে রাখা আছে পাঠ্য পুস্তক ও লেসন সংশ্লিষ্ট সকল উপকরণ। মজার ব্যাপার হলো শিক্ষক শ্রেণী কক্ষে বসে থাকেন অার শিক্ষার্থীরা তাদের রুটিন অনুযায়ী শ্রেণীকক্ষ পরিবর্তন করে থাকে৷ এখানে তাদের নিজস্ব সংস্কৃতি, জাতিগত ব্যাকগ্রাউন্ড এবং তাদের সম্প্রদায়ের অভিজ্ঞতাগুলি থেকে শিশুকে স্বাগত জানানো হয়, যা তাদেরকে উষ্ণ বন্ধুত্বপূর্ণ, নিরাপদ এবং যত্নশীল একটি শিক্ষণ পরিবেশ প্রদানে সহায়তা করে।

কিছু অতুলনীয় সৌন্দর্যের স্থানে অামাদের পরিদর্শণ:

পরিদর্শণ সম্পর্কে লিখার আগে কিছু কথা ভালো রাখা দরকার। আমার বিভিন্ন দর্শনীয় স্থান পরিদর্শনর জন্য আলাদা সময় কিংবা তারিখ বরাদ্ধ ছিল না। প্রশিক্ষণকে আরো বেগবান ও আনন্দঘন করে তোলার জন্য  প্রশিক্ষণের মাঝে মাঝেই আমাদের ভ্রমন ও পরিদর্শণের বা শিক্ষা সফরের ব্যবস্থা করা হতো। কিছু কথা বলে রাখা ভালো ব্যাংকক আমরা পৌঁছেছি ১৬ তারিখ, কিন্তু আমাদের ট্রেনিং ওপেনিং সিরিমনি ১৮-০৯-১৮ তাই ১৭ তারিখ গ্রুপের সবার সিদ্ধান্ত কিছু বিখ্যাত দর্শনীয় স্থান ঘুরতে যাবে। ১৭-০৯-১৮ সকাল ১০:০০ টায় এনি ও চু এর নেতৃত্বে রওয়ানা হলাম ব্যাংকক থেকে অল্প দুরুত্বের শান্তি চাই প্রাকান পার্ক এর উদ্দেশ্যে।

Santi Chai Prakan Park:

ব্যাংককে (প্রায় ৩ একর) এর একটি ছোট শহুরে পার্ক। Bang Lamphu এলাকায় Khlong Bang Lumphu খাল এর মুখে। এই পার্কটি নির্মান করা হয়েছিলো Bhumibol Adulyadej ৭২ তম জন্ম বার্ষিকীতে। পার্কটি চিনি কারখানার একটি পরিত্যক্ত স্থান থেকে রূপান্তরিত হয় এবং ১৯৯৯ সালে সম্পন্ন হয়। এখানে রয়েছে উল্লেখযোগ্য একটি Phra Sumen Fort রাজা রাম প্রথম ১৭৮৩ সালে নির্মিত এটি নতুন রাজধানীর প্রতিরক্ষা করার জন্য ১৪ টি দূর্গ ছিল। সেখান থেকে আমরা গেলাম wat arun temple.

Wat Arun Temple: থাইল্যান্ডের চারপাশে রয়েছে ৩১০০ বৌদ্ধ মন্দির। থাইতে এগুলো ওয়াট নামে পরিচিত। এদের মধ্যে একটি ওয়াট ওরুন বা ডন টেম্পল এর নামকরণ করা হয় ডন ইন্ডিয়ান গড অফ অরুণা নামে। ওয়াট অরুণের চার কোনার প্রাঙ্গনে যার চারটি দিকের অভিভাবক দেব দেবীর মূর্তি গুলির ঘর, এই রহস্যময় প্রতীক বাদ কে আরো শক্তিশালী করে।

ব্যাংকক থেকে গাড়ী যাত্রা ১২ টার দিকে আমরা পাতায়া সিটি পৌঁছালাম। কিন্তু দুর্ভাগ্য হঠাৎ করে শুরু হলো প্রচণ্ড ঝড় বৃষ্টি। সমুদ্র সৈকত আর উপভোগ করা হলোনা। যাই হোক দুপুরের খাবার খেয়ে আমরা চলে গেলাম —-

Art in Paradise: থাইল্যান্ডের প্রথম 3 ডি আর্টস যাদুঘর এবং বিশ্বের বৃহত্তমটি এটি নতুন পদ্ধতিতে একটি ইন্টারেক্টিভ 3D আর্ট যা আমাদেরকে সবচেয়ে বেশি বিস্মিত করলো। এখানে masterpieces সব হাত আঁকা হয়! শিল্প প্রদর্শনী 3-মাত্রিক মধ্যে বিস্ময়কর হয়। এটি আপনার ফটো বাস্তবসম্মত হয়ে তোলে। যাইহোক, এটি আপনার ধারনা, কল্পনা এবং পোস্টগুলির সৃষ্টিগুলির উপর নির্ভর করে। আপনি কখনই জানবেন না, যতক্ষণ না আপনি নিজের জন্য এটি উপভোগ করেন এখন ! প্যারাডাইজ এআর অ্যাপ্লিকেশন আর্ট সঙ্গে শিল্প একটি অংশ হচ্ছে ভোগ। শুধু জান্নাতে আর্টের পেইন্টিংগুলিতে আপনার যন্ত্রটিকে নির্দেশ করুন। অ্যাপ্লিকেশনটি স্বয়ংক্রিয়ভাবে আপনার ফটো এবং ভিডিওগুলিতে এআর প্রভাব যুক্ত করবে এবং তাদের ইন্টারেক্টিভ শিল্পকে আরও আড়ম্বরপূর্ণ, ক্রিয়েটিভ এবং মজা করবে।

Biggest Gems Gallery in Thailand: কারখানার কর্মীরা আমাদেরকে রত্নের উত্স সম্পর্কে বললো এবং রত্নের ইতিহাস ও উৎপত্তি সম্পর্কে অবহিত করলেন যা মাটির গুহায় ধাপে ধাপে শৈল্পিক ভাবে তুলে ধরা হয়েছে। এরপর গ্যালারিতে নিয়ে গেলো। রাশিচক্র চিহ্নের সাথে সম্পর্কিত গহনা নির্বাচন করে রত্ন কিনতে তারা উৎসাহিত করে যা নাকি একটি ভাগ্যবান amulet অর্জন করতে সহায়ক হয়।

Coral Island of Pattaya City:

কোহ লরনের সুন্দর সমুদ্র সৈকতগুলি পাতায়া় পশ্চিমে অবস্থিত একটি আইডিলিক দ্বীপ – একটি নিখুঁত দিন ট্রিপ বোট দ্বারা কোরাল আইল্যান্ড পরিদর্শন করার জন্য আমরা সুযোগ টি মিস করলাম না। কোরাল গঠন এবং সুন্দর পানির জীবন, এই জলাধারের বিভিন্ন জল উপভোগের সুযোগ গ্রহণ করা যায়। যেমন প্যারাশুট, জল স্কুটার, কলা নৌকা, সমুদ্রের হাঁটার ইত্যাদির অধীনে, সৈকতে দিন কাটান স্নোমিং স্নাতকিং এবং সানবাথিং।

Grand Palace & Emerald Buddha: রাজকীয় বাসভবন দেখার জন্য সবচেয়ে আকর্ষণীয় ও সুপরিচিত স্থান ব্যাংক্ক। এই রাজবংশের সকল 9 থাই রাজাদের বাড়িতে গ্র্যান্ড প্রাসাদটি ব্যবহূত হয়েছিল কিন্তু রাজা প্রাসাদে আসার পর থেকে এটি জনসাধারণের জন্য উন্মুক্ত ছিল কিন্তু এখনও রাজকীয় ব্যুরো দ্বারা রক্ষণাবেক্ষণ করা হয়। বেশিরভাগ ল্যান্ডমার্ক ঠিক 200 বছরের মতই। প্রাসাদ এলাকায় একটি মন্দির যা থাইল্যান্ডের সবচেয়ে পবিত্র বুদ্ধ মূর্তিকে হোস্ট করে। ভাগ্যবশত সেদিন ছিলো বুদ্ধের জন্মদিন তাই মন্দিরের ভেতরে ঢুকার সুযোগ হয়েছিলো। বছরে একদিন ভেতরে যাওয়া সবার জন্য উন্মুক্ত। সেখান থেকেই একজন গাইড ছিলেন যিনি এই প্রাসাদ ও মন্দিরের ইতিহাস ও তাৎপর্য আমাদের মাঝে তুলে ধরলেন এবং ঘুরে ঘুরে দেখালেন। যেগুলি শুধুমাত্র রাজাদের এবং রাজকীয় পরিবারগুলির জন্য সংরক্ষিত ছিল, তারা পুরোনো দিনের মধ্যে কীভাবে বসবাস করতেন তা দেখতে, অত্যন্ত দক্ষতার সমস্ত সৃষ্টির মধ্যে মহিমা এবং সৌন্দর্যের অভিজ্ঞতা লাভের জন্য।

Elephant show & Thai Cultural Show: এয়ারকন এবং চলমান মঞ্চ সঙ্গে বড় থিয়েটার। থাইল্যান্ডের সংস্কৃতি সম্পর্কে আরো জানতে আগ্রহীদের জন্য এটি একটি আকর্ষণীয় অনুষ্ঠান। অনেক ধরনের বিভিন্ন নাচ এবং শত শত অভিনেতা। অনুষ্ঠানের শুরুতে, একটি মুয় থাই প্রতিযোগিতা তার রিঙ্কের সাথে সম্পূর্ণ ছিল। মুয়াই থাইল্যান্ড থাইল্যান্ডে একটি ধরনের খেলা। শো শেষে প্রায় দুই হাতি ছিল। আমি মনে করি তারা যুদ্ধের জন্য হাতি ব্যবহার করে দেখছে। এই অনুষ্ঠানের পরে, এলিফ্যান্ট শোটির বিপরীত থিয়েটারে ভিড়টি অনুসরণ করলাম। আপনি হাতির ট্রাঙ্কের টাকা দিয়ে হাতি প্রশিক্ষকের কাছে টিপ দিতে পারেন। তারপর হাতি টাকা নেয় এবং তার প্রশিক্ষকের কাছে দেয়। এছাড়াও আপনি শো অংশ হতে, হাতি আঁকা টি-শার্ট কিনতে পারেন।

Pattaya Floating Market: অষ্টম শ্রেণির বইতে থা খা ফ্লোটিং মার্কেট সম্পর্কে পড়েছি এবং শিক্ষার্থীদের পড়াচ্ছি কিন্তু কল্পনা এবার বাস্তবে। মিস করিনি ফ্লোটিং মার্কেট ভিজিট করতে। ২008 সাল থেকে প্রতিষ্ঠিত, পট্টায়া ফ্লোটিং মার্কেটটি পট্টায় অবস্থিত নদীস্থল আকর্ষণ যা সুন্দর প্রাচীন থাই নদীভিত্তিক জীবিত সম্প্রদায়ের প্রদর্শন করে এবং থাইল্যান্ডের 4 টি প্রধান অঞ্চলের প্রদর্শনী সংস্কৃতি এবং স্থানীয় পণ্যগুলিতে কিছুটা সাশ্রয়ী মূল্যে বিক্রি করে।

Marketing:

থাই জামা কাপড় উন্নত হলেও অামাদের সংস্কৃতির সাথে তেমন মানানসই  না৷ কিন্তু স্মৃতি বলতে একটা কথা আছে; তাই অনিচ্ছা সত্ত্বেও  মনের আনন্দে সবার সাথে তাল মিলিয়ে চলা ও কিছু স্মৃতি রক্ষার্থে ছুটলাম থাই পোশাকের সন্ধানে। মার্কেট আমাদের হোটেল থেকে ছিলো কিছুটা দূরে। আমাদের পদচারনা ছিলো বিশেষ কিছু মার্কেটে। যদিও অামাদের কেনাকাটার তেমন কোনো ইচ্ছা ছিল না তবুও অামরা মার্কেটের সাজ সজ্জা, বিলাস বহুল মার্কেট দেখার উদ্দেশ্যে সবাই  খুই আনন্দ উল্লাস করে গেলাম অাভিজাত মার্কেটগুলোতে । কিছু কিছু পণ্য বাংলাদেশের তুলনায় দামে কিছুটা সস্তা মনে হলে ও অামরা যা কিনেছিলাম তা উল্লেখ করার মত নয়।

কৃতজ্ঞতাঃ

পরিশেষে বৈদেশিক প্রশিক্ষণ অর্জনের মাধ্যমে থাইল্যান্ডের শিক্ষা ব্যবস্থা, কারিকুলাম, সংস্কৃতি, জীবন যাপন ইত্যাদির সাথে পরিচয় করাতে যে সকল কর্মকর্তা মহোদয়গণ অামাকে স্বহৃদয়বান হয়ে সহায়তা করেছেন তাদের প্রতি অান্তরিক কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করছি৷ অারো কৃতজ্ঞা জানাচ্ছি টিকিউঅাই-২ এর সংশ্লিষ্ট সকলকে যাদের সদয় বিশ্লষণ ধর্মী বিবেচনায় অামি অামার জ্ঞান ও অভিজ্ঞতা প্রসারিত করার ও অামার কর্মক্ষেত্রে প্রয়োগ করার সুযোগ পেয়েছি।

লেখক- তাসলিমা বেগম

সহকারি প্রধান শিক্ষক

চরফ্যাশন টি.বি মডেল সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়

ভোলা৷

শর্টলিংকঃ
সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না। পাঠকের মতামতের জন্য কৃর্তপক্ষ দায়ী নয়। লেখাটির দায় সম্পূর্ন লেখকের।


ঘোষনাঃ