আজ   ,
সংবাদ শিরোনাম :

না ফেরার দেশে অভিনেত্রী তাজিন আহমেদ-শিক্ষার কণ্ঠস্বর

অনলাইন ডেস্ক

 

ছোট পর্দার জনপ্রিয় অভিনেত্রী তাজিন আহমেদ আর নেই (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)। হৃদযন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ হয়ে মঙ্গলবার বিকেলে ৪টা ২০ মিনিটে রাজধানীর উত্তরার রিজেন্ট হাসপাতালে তিনি মারা যান। তার বয়স হয়েছিল ৪৫ বছর।

মঙ্গলবার বিকেলে এই তথ্য জানান অভিনয়শিল্পী সংঘের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক রওনক হাসান। হাসপাতাল থেকে তিনি বলেন, ‘অসুস্থতার খবর পাওয়ামাত্রই আমরা হাসপাতালে আসি। একটু আগে চিকিৎসক আমাদের জানিয়েছেন, তাজিন আর নেই।’

তাজিনের ফুপু অভিনেত্রী দিলারা জামান বলেন, লাইফ সাপোর্টে রাখার পর বিকাল ৪টার দিকে মারা যায় তাজিন।

অভিনয় শিল্পী সংঘের সাধারণ সম্পাদক আহসান হাবিব নাসিম বলেন, তাজিন অনেকদিন ধরেই একা বসবাস করে আসছেন। তার সঙ্গে একজন মেকাপ আর্টিস্ট থাকেন। তিনি তাজিনের দেখাশোনা করতেন।

মঙ্গলবার সকাল ১০টায় হৃদরোগে আক্রান্ত হলে তাকে উত্তরার রিজেন্ট হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানেই তাকে লাইফ সাপোর্ট দেওয়া হয়। অবশেষে বিকেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক নূর হোসেন তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

তাজিন আহমেদের মারা যাওয়ার খবর পেয়ে হাসপাতালে ছুটে আসেন অভিনেতা রিয়াজ, রওনক হাসান, নির্মাতা বদরুল আনাম সৌদ, সকাল আহমেদ, অভিনেত্রী জেনীসহ অনেকেই।

অভিনেতা রওনক হাসান জানান, মরদেহ সমাহিত করার বিষয়ে এখন পর্যন্ত কোনও সিদ্ধান্ত পরিবার থেকে নেওয়া হয়নি।

তাজিনের জন্ম ১৯৭৩ সালে নোয়াখালী জেলায় হলেও শৈশব-কৈশোর কেটেছে পাবনায়। ১৯৯৬ সালে বিটিভিতে প্রচারিত ‘শেষ দেখা শেষ নয়’ নাটকে অভিনয়ের মধ্য দিয়ে তাজিন আহমেদের অভিনয়যাত্রা শুরু হয়েছিল। জাহিদ হাসান, আজিজুল হাকিম, আজাদ আবুল কালাম, তৌকীর আহমেদ, টনি ডায়েসদের সঙ্গে জুটি বেঁধে নিয়মিতই তিনি হাজির হতেন টিভি দর্শকদের সামনে। অভিনয়ের পাশাপাশি মডেলিংয়েও সুনাম কামিয়েছেন তিনি। খুব ভালো তাজিন আহমেদের লেখার হাতও। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতায় স্নাতকোত্তর ডিগ্রি নিয়ে সংবাদপত্রেও কাজ করেছিলেন তিনি। মা দিলারা জলির প্রোডাকশন হাউজ ছিল। মায়ের হাত ধরেই অভিনয় জগতে প্রবেশ তাজিনের।

শর্টলিংকঃ
সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না। পাঠকের মতামতের জন্য কৃর্তপক্ষ দায়ী নয়। লেখাটির দায় সম্পূর্ন লেখকের।


ঘোষনাঃ