অনলাইন ডেস্ক

দেশের দরিদ্র পরিবার ও শিক্ষার্থীদের মধ্যে পুরনো ল্যাপটপ ও স্মার্টফোন বিতরণের উদ্যোগ নিয়েছে বিদ্যানন্দ ফাউন্ডেশন। এসব পরিবারের যারা লেখাপড়া করছেন, কিন্তু ফোন ও ল্যাপটপ না থাকায় করোনাকালে অনলাইন ক্লাসে অংশ নিতে পারছেন না, তাদের জন্য উপহার হিসেবে এসব বিতরণ করা হবে।

প্রাথমিকভাবে বিতরণের জন্য ৫ শতাধিক ল্যাপটপ ও স্মার্টফোন সংগ্রহ করা হয়েছে বলে সংগঠনটি জানিয়েছে। এছাড়া আরও এক হাজার নতুন স্মার্টফোন ও ট্যাব ক্রয়ে হ্যান্ডসেট কোম্পানিগুলোর সঙ্গে পার্টনারশিপের আহ্বান জানানো হয়েছে।

এ ধরনের উদ্যোগ নেয়ার পেছনের কারণ হিসেবে প্রতিষ্ঠানটির চেয়ারম্যান কিশোর কুমার দাশ বলেন, করোনা দুর্যোগে অনেক শিক্ষার্থী অনলাইন ক্লাসে অংশ নিতে পারছে না স্মার্টফোন না থাকায়। এমন অনেক স্মার্টফোন এবং ল্যাপটপ অনেকের ঘরেই অব্যবহৃত পড়ে আছে। করোনা সংক্রমণের আগে কেউ ভাবেনি এই ল্যাপটপ এবং ফোন মহামূল্যবান হবে। অথচ অনেক দরিদ্র শিক্ষার্থী এগুলোর অভাবে অনলাইনে ক্লাস থেকে বঞ্চিত হচ্ছে।

তিনি বলেন, একের জঞ্জাল অন্যের সম্পদ। সমাজের ভুলে যাওয়া এই রীতিটা আমরা ফিরিয়ে আনতে চেয়েছি। পরিবেশগত কারণেও একবার ব্যবহৃত এসব পণ্য পুনরায় ব্যবহারের জন্য উৎসাহিত করা হচ্ছে এ বছর থেকে। এরই ধারাবাহিকতায় এ বছর বইমেলায় টাকার পরিবর্তে ওষুধ এবং মোবাইল-ল্যাপটপের বিনিময়ে আমরা বই বিক্রি করি। এর মাধ্যমে ৫ শতাধিক মোবাইল এবং ল্যাপটপ সংগ্রহ করা হয়েছে। এগুলো এখন বিতরণের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে গরীব শিক্ষার্থীদের মাঝে।

বিদ্যানন্দের পক্ষ থেকে পুরাতন হ্যান্ডসেট মেরামত করতে পারে এমন টেকনিশিয়ানদেরকে প্রতিষ্ঠানটির মিরপুর অফিসের সঙ্গে যোগাযোগের আহ্বান জানানো হয়েছে। তাদেরকে ভালো পারিশ্রমিক প্রদান করা হবে। পার্টনারশিপে উৎসাহীদের support@bidyanondo.orgঠিকানায় মেইল করতে বলা হয়েছে। এছাড়া অব্যবহৃত ল্যাপটপ দিতে আগ্রহীরা বিদ্যানন্দ ঢাকা শাখা, বাড়ি নং- ১৩ (দ্বিতীয় তলা), রোড নং-২/বি, পল্লবী আবাসিক এলাকা, মিরপুর, ফোন: ০১৮৭৮১১৬২৩৪ ঠিকানায় যোগাযোগ করতে অনুরোধ করা হয়েছে।

SHARE