সম্মানিত বদলি প্রত্যাশী বেশিকগন,বদলি বাস্তবায়ন যখন চূড়ান্তপর্যায়ে ঠিক তখনই কিছু পঙ্গপালের আবির্ভাব!!যারা বিভিন্ন সময়ে বদলি বানচালের জন্য সব রকম ন্যাক্কারজনক কর্মকাণ্ডের শেষ শক্তি প্রয়োগ করেও পেরে উঠতে পারেনি তারাই আবার নতুনভাবে বদলি বাস্তবায়ন কমিটির পেছনে স্বভাবজাত শত্রুদের মত উঠেপড়ে লেগেছে। যদিও আমরা তাদেরকে যোগ্য প্রতিদ্বন্দী ভাবছি না তবে তাদেরকে আর বাড়তে দেয়াটাও একরকম বোকামি বটে।
‘প্রেম করার বয়সে কঠিন পাহারায় রেখে -বিয়ের বয়সে “কোন পচ্ছন্দ আছে কিনা”!!??মার্কা কথা কথা বড়ই বেমানান।
আদালত থেকে রাজপথে গড়ানোতে একধরনের শক্তিমত্তা ও বুদ্ধিবৃত্তিক কৌশল প্রয়োজন হয়।ভাল কোন কাজে কাউকে যে বিভিন্নসময় বিভিন্নমুখী টার্গেটে পরিণত হতে হয় তা শুধু বদলি বাস্তবায়নের কর্মকাণ্ডে যুক্ত হয়ে পরিপক্ব ও পরিচ্ছন্নভাবে বুঝতে সক্ষম হলাম।সেই সাথে মুখোশধারী কিছু শয়তানকেও চিনলাম।
মার্কিনী মুদ্রার উপর লেখা থাকে -“In God We Trust” তাতে অবিশ্বাসীদের কিচ্ছু আসে যায় না।যাহোক বিষয়টি নিয়ে আর কোন সময় আলোচনা করা যাবে।কাজের কথা হলো বদলি নীতিমালায় আছে আর সেটা কার্যকর করাই আমাদের একমাত্র উদ্দেশ্য। সেটা হতে যা কিছুর প্রয়োজন তা করতে বদলি বাস্তবায়ন
সাধুগন সাবধান!!
বাটপারি ছেড়ে দেন-
কোকিলের স্বভাব(কাকের বাসায় ডিম পাড়ার খায়েস) ছেড়ে সত্য এবং বস্তুনিষ্ঠ খবর পোষ্ট করুন।নতুবা শিক্ষক হিসেবে যে সম্মানটুকু আছে তাও হারাবেন।জাতীয়করণকৃত প্রতিষ্ঠানের নেতাগন বেশিকগনের কি উপকারে আসবে আমাদের বোধগম্য নয়। বদলি আন্দোলনের নেতৃত্বে যারা সময় শ্রম ব্যায় করছে তাদেরকে সহযোগিতা করুন কোন কুচক্রী কর্মকাণ্ড যেন বদলি বাধাগ্রস্ত না করতে পারে তাতে সজাগ থাকুন।বদলি ইস্যুতে কোন রকম ফাইজলামি বরদাস্ত করা হবে না।
✌জয় হোক মানবতার
মুক্তিপাক বন্দীদশার।
ফ্যক্টঃসিন্নি খাইলেন মোল্লা চিনলেন না!!??
কাজী আমজাদ হোসেন ,
সদস্য কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী,
বদলি বাস্তবায়ন কমিটি।
SHARE